Responsive Ad Slot

ইসরো লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
ইসরো লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

আরও এক ধাপ এগোল ইসরো-র গগনযান, রকেটের ক্রায়োজেনিক ইঞ্জিনের পরীক্ষা সফল

কোন মন্তব্য নেই

শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২

আরও এক ধাপ এগোল ইসরো-র গগনযান,ইঞ্জিনের পরীক্ষা সফল
ইঞ্জিনের পরীক্ষা ৭২০ সেকেন্ড বা ১২ মিনিটের জন্য । ছবি


হ্যালো বন্ধুরা উৎক্ষেপণের আগে আরও একটি মাইলফলক পেরিয়ে গেল ভারতের মহাকাশচারী পাঠানোর প্রথম অভিযান গগনযান।গগনযান এর রকেটের ক্রায়োজেনিক ইঞ্জিনের সফল পরীক্ষা করল ইসরো।

৭২০ সেকেন্ড বা ১২ মিনিটের জন্য। এত বেশি সময় ধরে গগনযান অভিযানের রকেটের ইঞ্জিনের পরীক্ষা ইসরো এর আগে করেনি। ভারত গগনযান অভিযানে তিন জন নভশ্চরকে পাঠাবে মহাকাশে।ইসরো-র তরফে টুইট করে জানানো হয়েছে ।  তামিলনাড়ুর মহেন্দ্রগিরিতে ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থার প্রোপালসন কমপ্লেক্স (আইপিআরসি) থেকে এই সফল পরীক্ষা চালানো হয়েছে। ৭২০ সেকেন্ড ধরে।

ইসরো পরে একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে যে গগনযান অভিযানের জন্য যে যে লক্ষ্য নিয়ে ক্রায়োজেনিক ইঞ্জিন বানানো হয়েছে এ বারের পরীক্ষায় সেই সবকটি লক্ষ্যেই নিখুঁত ভাবে পৌঁছনো সম্ভব হয়েছে। ইঞ্জিন খুব ভাল কাজ করেছে আগের চেয়ে অনেক বেশি সময় প্রায় ১২ মিনিট ধরে ।

আরও পড়ুন:স্বাধীনতার ৭৫তম বর্ষপূর্তিতে পৃথিবীর কক্ষপথে ৭৫ উপগ্রহ পাঠাচ্ছে ভারত

ইসরো-র বিবৃতিতে বলা হয়েছে এই সফল পরীক্ষা গগনযান অভিযানের বাস্তবায়নের পথে একটি মাইলফলক হয়ে থাকল। দেশের প্রথম মহাকাশচারী পাঠানোর অভিযান সফল করার জন্য রকেটের ক্রায়োজেনিক ইঞ্জিনের যতটা মজবুত ও দক্ষ হওয়ার প্রয়োজন সেম্ত পরীক্ষায় সব প্রত্যাশা পূর্ণ হয়েছে।

ধন্যবাদ বন্ধুরা ।

ইসরো-র নতুন চেয়ারম্যান হলেন রকেটবিজ্ঞানী এস সোমনাথ

কোন মন্তব্য নেই

ইসরো-র নতুন চেয়ারম্যান হলেন রকেটবিজ্ঞানী এস সোমনাথ
এস সোমনাথ ছবি ।


হ্যালো বন্ধুরা ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর নতুন চেয়ারম্যান হলেন দেশের প্রথম সারির রকেটবিজ্ঞানী এস সোমনাথ। ইসরো-র চন্দ্রযান-২ অভিযানের রকেট উৎক্ষেপণ প্রকল্পের নেতৃত্ব দেওয়া সোমনাথকে কেন্দ্রীয় মহাকাশবিজ্ঞান মন্ত্রকের সচিব ও দেশের মহাকাশ কমিশনের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ করা হয়েছে । তিন বছরের জন্য । সোমনাথের নতুন দায়িত্বের খবর কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে ঘোষণা করা হয়েছে।

২০১৮ র জানুয়ারি থেকে ইসরো-র ‘বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টার (ভিএসএসসি)এর অধিকর্তা সোমনাথ ইসরো চেয়ারম্যান কে শিবনের স্থলাভিষিক্ত হলেন। ভারতের সবচেয়ে শক্তিশালী রকেট জিএসএলভি-মার্ক-৩ এবং তার আগের প্রজন্মের রকেট পোলার লঞ্চ স্যাটেলাইট ভেহিকল্‌স (পিএসলএলভি) তৈরির অন্যতম কাণ্ডারি সোমনাথের গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে ।

ইসরো-র বিভিন্ন মহাকাশ অভিযানে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছোট ছোট উপগ্রহকে পৃথিবীর কক্ষপথে পাঠানোর ক্ষেত্রে পিএসএলভি এই মুহূর্তে অন্যতম সেরা হাতিয়ার।কেরলের কোল্লামে টিকেএম কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিং থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক হওয়ার পর সোমনাথ এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মাস্টার্স করেন ।

আরও পড়ুন:নাসার বর্তমান চেয়ারম্যান কে?

বেঙ্গালুরুর ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স (আইআইএসসি) থেকে। তার পর ১৯৮৫-তে যোগ দেন ইসরো-র বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টারে। ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত সোমনাথ ছিলেন জিএসএলভি মার্ক-৩ রকেট প্রকল্পের অধিকর্তা। ২০১৪-র নভেম্বর পর্যন্ত সোমনাথ ছিলেন ভিএসএসসি-র স্ট্রাকচার্স ইউনিট ও প্রোপালসন অ্যান্ড স্পেস অর্ডিন্যান্স ইউনিটের ডেপুটি ডিরেক্টর।

ধন্যবাদ বন্ধুরা ।

স্বাধীনতার ৭৫তম বর্ষপূর্তিতে পৃথিবীর কক্ষপথে ৭৫ উপগ্রহ পাঠাচ্ছে ভারত

কোন মন্তব্য নেই

বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২২

স্বাধীনতার ৭৫তম বর্ষপূর্তিতে পৃথিবীর কক্ষপথে ৭৫ উপগ্রহ পাঠাচ্ছে ভারত
পৃথিবীর কক্ষপথে ৭৫ উপগ্রহ পাঠাচ্ছে ভারত ছবি ।


হ্যালো বন্ধুরা ৭৫ বছরে ৭৫টি পৃথিবীর কক্ষপথে যাচ্ছে একই সঙ্গে। একটিমাত্র উৎক্ষেপণেই। ভারতের স্বাধীনতা প্রাপ্তির ৭৫তম বর্ষপূর্তিতে এ বছর একই সঙ্গে ৭৫টি উপগ্রহ পাঠানো হচ্ছে পৃথিবীর কক্ষপথে। দেশের ইন্টারনেট ব্যবস্থাকে আরও দ্রুত গতির আরও দক্ষ করে তুলতে। দেশের প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতেও ইন্টারনেটের নিরবচ্ছিন্ন সুবিধা পৌঁছে দিতে। ইসরো সূত্রে বুধবার এই খবর দেওয়া হয়েছে।

অভিযানের নাম দেওয়া হয়েছে ইউনিটিস্যাট। যার প্রথম অভিনবত্ব এই ৭৫টি কৃত্রিম উপগ্রহই বানানো হয়েছে ভারতের মাটিতে। আপাদমস্তক ভারতীয় সরঞ্জাম দিয়ে। দ্বিতীয় অভিনবত্ব, এই ৭৫টি উপগ্রহ বানিয়েছেন অন্তত এক হাজার ভারতীয় ছাত্রছাত্রী। যাঁদের কেউ কেউ যুক্ত রয়েছেন চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয় বা কানপুরের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আইআইটি কানপুর)-র সঙ্গে।

 কেউ কেউ আবার আইআইটি বম্বে-সহ দেশের আরও ১২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, এমনকি কয়েকটি স্কুলের সঙ্গেও যুক্ত।অভিযানের একমাত্র লক্ষ্য মহাকাশ থেকে দেশের ইন্টারনেট যোগাযোগ ব্যবস্থা ও তার মাধ্যমে ইন্টারনেটের সব রকমের সুযোগসুবিধা (ইন্টারনেট অব থিংস অথবা আইওটি) দুর্গম প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতেও নিরবচ্ছিন্ন ভাবে পৌঁছে দেওয়া।অভিযানটি যৌথ ভাবে পরিচালনা করবে ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো এবং ‘ইন্ডিয়ান টেকনোলজি কংগ্রেস অ্যাসোসিয়েশন (আইটিসিএ)।

ইসরো সূত্রে জানানো হয়েছে এই অভিযানে পৃথিবীর কাছের কক্ষপথে (লোয়ার-আর্থ অরবিট) পাঠানো হবে ৭৫টি উপগ্রহকে। ইন্টারনেট ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে উপগ্রহগুলি একে অন্যের সঙ্গে প্রতি মূহূর্তে যোগাযোগ রেখে চলবে পৃথিবীর কক্ষপথে। প্রতিটি উপগ্রহের সঙ্গে গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে রাখা হবে নিয়মিত যোগাযোগ। তা ছাড়াও উপগ্রহগুলি কক্ষপথে একে অন্যের সঙ্গে কী ভাবে যোগাযোগ রাখছে একে অন্যের সঙ্গে কী ভাবে বার্তা বিনিময় করে চলেছে তার উপরেও নজর রাখবে গ্রাউন্ড স্টেশন। জুলাইয়ের শেষের দিকে বা অগস্টের গোড়ায় উপগ্রহগুলিকে একই সঙ্গে পৃথিবীর কক্ষপথে পাঠানোর কথা ভাবা হয়েছে।

ধন্যবাদ বন্ধুরা


Don't Miss
© all rights reserved
made with by templateszoo