Responsive Ad Slot

টেলিস্কোপ লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
টেলিস্কোপ লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

রেডিও টেলিস্কোপ আবিষ্কার কিভাবে হয়েছিল?

কোন মন্তব্য নেই

বৃহস্পতিবার, ১১ নভেম্বর, ২০২১

টেলিস্কোপ 

 প্রাচীনকাল থেকে শুরু করে ১৬৬০ খ্রিস্টাব্দে পর্যন্ত পৃথিবীর বাইরে যে বৃহত্তর জগতে রয়েছে অর্থাৎ ইউনিভার সম্পর্কে আমরা জানিনা । কেবল মাত্র দৃষ্টিশক্তি অনুমান ম্যাথমেটিক্যাল ক্যালকুলেশনের উপর সম্পূর্ণ নির্ভর ছিলাম । তবে সেই সময়কার বেশিরভাগ ক্যালকুলেশন একুরেট হতো না । কারণ সেই সময়ে বর্তমান দিনের নেয় অ্যাডভান্স টেকনোলজি মডার্ন সাইন্টিফিক ডিসকভার হয়নি । তাই এই দীর্ঘ সময় ধরে আমরা কেবলমাত্র নিজেদের সোলার সিস্টেম এবং সূর্যের কাছে থাকা কয়েকটি গ্রহ সম্পর্কে বোঝার চেষ্টা করছিলাম ।

 সেই সময় ব্ল্যাকহোল একজনের অথবা শুধুমাত্র কনসেপ্ট ছিল । এরপর আসে যখন ষোলো চোখ এড়াতে টেলিস্কোপ এর ডিসকভার হয় এই সময় থেকে আমরা মহাকাশের বহু দূরে থাকা অবজেক্টকে ক্লিয়ার দেখতে শুরু করি । টেলিস্কোপ কেমন করে আবিষ্কার হয়েছিল  টেলিস্কোপের সাহায্যে দূরের জিনিস কাছে থাকলেও এর একটি সমস্যা ছিল । সেই অফ থে অরিজিনাল অন অবজেক্ট এবং কম্পোজিশন এই ধরনের ডিটেলসটা জানা যেত না । আর এই সমস্যার সমাধান করেছিল রেডিও টেলিস্কোপ । টেলিস্কোপ থেকে রেডিও টেলিস্কোপ বানানোর পিছনে লুকিয়ে রয়েছে ইন্টারেস্টিং স্টরি ।


রেডিও টেলিস্কোপ আবিষ্কার কিভাবে হয়েছিল
রেডিও টেলিস্কোপ

রেডিও টেলিস্কোপ আবিষ্কার

হ্যালো বন্ধুরা টেলিস্কোপ  পরিষেবায় বাধা সৃষ্টি হয়েছে কোন এক অজ্ঞাত কারণে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছিল । এই সমস্যার সমাধানের দায়িত্ব দেয়া হয় এর জন্য একটি বিশেষ শ্রেণী তৈরি করেন । অধ্যয়ন করার পদ্ধতিকে পাল্টে দেয় জানেন একটি সাধারণ কেমনভাবে একসঙ্গে পাল্টে দিয়েছিল । কথাটা শুনলেই আমাদের মাথায় আসে ট্রানজিস্টার সেটিং করলেই হয় । কোন নিউজ অথবা এন্টারটেনমেন্ট শুরু হয়ে যায় কিন্তু জানেন এই রেডিও কেমন ভাবে কাজ করে । রেডিওর প্রধান ওয়ার্কিং এলিমেন্ট হলো ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক তরঙ্গ করে ট্রানজিস্টার রেডিও তরঙ্গ অর্থাৎ ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক রেডিয়েশন আলোকরশ্মির নেয় । তবে শুধু পার্থক্য দেখে আমরা চোখে দেখতে পাইনা ১৯৪০ সালে ১৩৭ ডিসকভার করেন রেডিওর মাধ্যমে । আমরা আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে পারি আর সেই সাইন্টিস্ট ছিলেন তার । এই সন্ধান অ্যাস্ট্রোনমি ফেলতে এক নতুন যুগের সূচনা করে তিনি merry-go-round রিসিভার এর মাধ্যমে ডিসকভার করেন । এটি এমন এক ১.৫ সিগন্যাল রেকর্ড করতে পারত । যে নীতির মাধ্যমে প্রথম কাজ করে আসছিল । মেইলটা সেন্টার থেকে একটি অভূতপূর্ব ছিল ডিজাইন করেছিলেন একজন নাম রাখা হয় রেডিও টেলিস্কোপ । অপারেটর এবং ইঞ্জিনিয়ারকে পৃথিবীর প্রথম রেডিও টেলিস্কোপ নির্মাণ করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল ।এরপর ধীরে ধীরে রেডিও টেলিস্কোপ এর উপর নজর দেয়া হয় । আর এইভাবে আবিষ্কার হয় রেডিও টেলিস্কোপ ।

রেডিও টেলিস্কোপ যেভাবে কাজ করে

এবার চলুন দেখা যাক অফ ডিফারেন্ট পরিবেশে থাকা যে কোন পোষ্টের মাধ্যমে করা হতো । স্ক্রিনে দেখানো এই পিকচার গুলি অপটিক্যাল টেলিস্কোপটি নেওয়া হয়েছিল । যার সাথে আমরা সকলেই পরিচিত কিন্তু যখন আমরা এদেরকে রেডিও টেলিস্কোপের সাহায্যে দেখি তখন পুরো ছবিটা পাল্টে যায় । এক নতুন রূপে ধরা দেয় এমনকি অজানা ঘটনা তুলে ধরে ।১৯৫০-৬০ এবং সত্তরের দশকে নতুন খুঁজেছিল যেমন পালসার এবং রেডিও গ্যালাক্সি তবে এই ধরনের খোঁজ সর্বপ্রথম শুরু হয়েছিল । এবার নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন অপটিক্যাল টেলিস্কোপটি শুধুমাত্র দূরের জিনিস কাছে আনতে পারে । কিন্তু তার ডিটেলস স্টাডি করতে পারে একমাত্র রেডিও টেলিস্কোপ এর মাধ্যমে শুধু মহাকাশ থেকে আসা যেকোনো ধরনের সিগন্যাল সে গ্রহ-নক্ষত্র blackhole-1 হোক না কেন সব কাজ করতে পারে । থেকেও বড় বিষয় হলো রেডিও টেলিস্কোপ দেশে থাকা ইউনিভার্সিটির ক্যাস্ট ডিটেক্ট করতে পারেন । যার সাহায্যে আইডেন্টিফাই করা যায় । স্পেসের কোন স্থানে কসমিক ডেনসিটি কমবেশি এর থেকে সাইন্টিস্টদের বুঝতে সুবিধা হয় । ইউনিভার্সের কোন স্থানে কত বেশি শব্দ থাকতে পারে কারণ একমাত্র সেই সকল স্থানে বেশি দেখা যায় । যেখানে গ্যাস এবং পার্টিকেলের ডেনসিটি বেশি থাকে শুধু তাই নয় সেটা মনে করে ইউনিভার্সিটি জন্মের পর কেমন অবস্থা তৈরি হয়েছিল । এবং তারপর প্রথম স্টার ফর্মেশন কেমন হবে শুরু হয় গ্যালাক্সি life-cycle এমনকি সুদূর গ্যালাক্সি থেকে আসা দিনগুলি সিগন্যাল কেউ কাজ করতে সক্ষম এই রেডিও টেলিস্কোপ । 

রেডিও সিগন্যাল

এবার দেখা যাক কেমন ভাবে কাজ করে যেকোনো রেডিও টেলিস্কোপ এর মাঝখানে একটি বডি থাকে । আর সামনে থাকে সিগন্যাল প্রথম কাজ করে । যেখান থেকে এমপ্লিফায়ার এর সাহায্যে আরো স্ট্রং করার পরেই সিগন্যালকে অপটিক্যাল ফাইবারের সাহায্য পাঠানো হয় । সুপারকম্পিউটার পর্যন্ত এরপর ডিজিটাল সিস্টেমে রেডিও শেষ করা হয় । তবে এখান থেকে কোন ছবি পাওয়া যায় না এই সিস্টেম এর পরিবর্তে উঠে আসে । এরপর শুরু হয় তারা ডিজিটাল সিস্টেমে উঠে আসা এই সকল রোগ থেকে ছবি তৈরি করতে এক ধরনের বিশেষ সফটওয়ারের সাহায্যে অবজেক্টের ইমেজ তৈরি করা হয় । জানেন রেডিও টেলিস্কোপ কে নির্জন স্থানে কেন তৈরি করা হয় নির্মাণ করার জন্য প্রয়োজন হয় । একটি বড় এরিয়া যেখানে থাকে অর্থাৎ এখানে কোন প্রকার লাউড সাউন্ড মোবাইল সিগন্যাল টেলিভিশন এমনকি হাইভোল্টেজ ইলেকট্রিসিটি ইন্টারফিয়ারেন্স যেন না থাকে ।

 কারণ স্পেসের বহুদূর থেকে আসা সিগন্যাল আর থার্মোস্ফিয়ার এর সংস্পর্শে আসামাত্র দুর্বল হয়ে যায় । তার ওপর এই ধরনের ইন্টারফিয়ারেন্স সিগন্যাল করে দিতে পারে আমরা সকলেই জানি বর্তমানে পৃথিবীর লার্জেস্ট টেলিস্কোপ অবস্থিত যার নাম ফাস্ট । তবে বেশিদিন তার জাদু' ধরে রাখতে পারবে না । তবে সেই বিষয়ে যাবার পূর্বে চলুন দেখে নেওয়া যাক বর্তমানে world's second-largest রেডিও টেলিস্কোপ অবস্থায় রয়েছে । কয়েক বছর আগে পর্যন্ত ওয়ার্ল্ড লার্জেস্ট রেডিও টেলিস্কোপ টেলিস্কোপ অবস্থিত তৈরি করা হয়েছিল । এবং স্টাডি করার জন্য এতে রয়েছে পাওয়ারফুল সিস্টেম দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে ডিসকভার করেছেন । গ্যালাক্সি গ্র্যান্ড মলেকিউলস এবং পালসার কিন্তু আনফরচুনেটলি ডিসেম্বর ২০০৭ পাওয়ারফুল হ্যারিকেন এর জন্য আর্চিভস করেছে । 


রেডিও টেলিস্কোপ আবিষ্কার কিভাবে হয়েছিল
রেডিও টেলিস্কোপ সিগন্যাল

সিগন্যালক রিফাইন

এবার চলুন দেখা যাক কিভাবে থেকে  টেলিস্কোপ দেখতে একই রকম বাউল শিল্পী শেখর এর তুলনায় একচুয়ালি সিগন্যালকে রিফাইন করেন । অপরদিকে আশীবিষে ডায়ামিটার ৩০৫ মিটার কিন্তু তা সত্ত্বেও আজ থেকে বেশি পাওয়ারফুল যার সাহায্যে প্লানেট এ্যার্থ কিভাবে ডিটেক্ট করা যায় । তবে আরও প্রায় দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে কাজ করেছে । সেখানে ফাস্ট টেলিস্কোপ এর জার্নি সবেমাত্র শুরু হয়েছে তবে ফাস্ট এই অল্প সময়ে পালসার ১৫০ এবং p1102 ডিসকভার করেছে । তবে হয়তো আগামী দশ বছরের মধ্যে ফাস্ট টেলিস্কোপ  আর থাকবে না । অর্থাৎ স্কয়ার কিলোমিটার অবজারভেটরি কাউন্সিল ইউকের প্রধান লক্ষ্য অ্যাস্ট্রোনমি ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারীতে তরফ থেকে একটি প্রকাশ পাস । হয় যেখানে বলা হয় আগামী দশ বছরের মধ্যে তারা ওয়ার্ল্ড লার্জেস্ট বানাতে চলেছে আর এই কাজে সাহায্য করবে । পৃথিবীর ১০ টি দেশ অস্ট্রেলিয়া কানাডা চায়না ইন্ডিয়া নিউজিল্যান্ড সাউথ আফ্রিকা নেদারল্যান্ড এবং আর এই প্রজেক্ট তৈরি হবে । 

গভর্মেন্টের অবজারভেশনে তরফ থেকে বলা হয়েছে এই পেজে থেকেও কাজ করতে পারবে। এখন আমি ফিল্ডে এক যুগান্তকারী পরিবর্তন আসতে পারে সেই সময়ে ভিনগ্রহী ইটের অবজারভেশনে অর্গানাইজেশন এর তরফ থেকে বলা হয়েছে ।এই টেলিস্কোপ এতটাই পাওয়ারফুল হবে যে উইডথ থে উইক সিগন্যাল কেউ কাজ করতেপারবে । যার পর এখন আমি ফিল্ডে এক যুগান্তকারী পরিবর্তন আসতে পারে সেই সময় হয়তো ভিনগ্রহী সংকেত অর্থাৎ এলিয়েন সিগন্যাল কাজ করা সম্ভব হবে ।  কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না ভাল লাগলে একটা লাইক বন্ধুদের মধ্যে শেয়ার । 

টেলিস্কোপ কিভাবে তৈরি হয়

কোন মন্তব্য নেই

বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২১

টেলিস্কোপ কিভাবে তৈরি হয়
টেলিস্কোপ তৈরি

 

 (২ এর মধ্যে ১ এন্ট্রি) ১: একটি লেন্সের মাধ্যমে আলোক রশ্মির প্রতিসরণ বা অবতল দর্পণ দ্বারা আলোক রশ্মির প্রতিফলনের মাধ্যমে দূরবর্তী বস্তু দেখার জন্য সাধারণত একটি টিউবুলার অপটিক্যাল যন্ত্র । প্রতিফলক প্রতিসরাকের তুলনা করুন। ২: বিভিন্ন টিউবুলার ম্যাগনিফাইং অপটিক্যাল যন্ত্রের যেকোনো একটি।


মেশিনিং দিয়ে টেলিস্কোপ

বহু শতাব্দী আগে একজন ডাচ অপটিশিয়ান দ্বারা উদ্ভাবিত হয়েছিল । তার আগে এটি বিশ্বাস করা হয়েছিল যে পৃথিবী আসলে সূর্যের চারপাশে ঘোরানো সিরিজটি ইতালীয় জ্যোতির্বিজ্ঞানী গ্যালিলিওর হাতে ছাড় দিয়েছিল। যে টেলিস্কোপটি বাস্তবতাকে ফোকাসে নিয়ে এসেছে আধুনিক টেলিস্কোপগুলি সেই প্রারম্ভিক সংস্করণগুলির থেকে আলোকবর্ষ এগিয়ে এবং তাদের আইপিসগুলির মাধ্যমে মহাবিশ্ব একটি প্রতিফলিত দূরবীন বাউন্স করে। এবং আলোকে ঘনীভূত করতে থাকে। আয়নার সাথে উত্পাদন শুরু হয় নলাকার ধাতব অংশগুলির । মেশিনিং দিয়ে এগুলি বিভ্রান্তিকর এবং একসাথে স্ক্রু করা হলে এগুলি স্ট্রেলাইটকে ব্লক করবে। যা হস্তক্ষেপ করবে টেলিস্কোপ অপারেশন আরও সরঞ্জামগুলি। একটি কঠিন অ্যালুমিনিয়াম ডিস্ককে স্পোক সহ একটি রিংয়ে রূপান্তরিত করে । এই অংশটিকে স্পাইডার বলা হয়। টেলিস্কোপের সেকেন্ডারি মিররকে সমর্থন করার জন্য একটি কাঠামো যা ধাতব অংশগুলিকে একটি প্রতিরক্ষামূলক অক্সাইড দিয়ে লেপ দেওয়ার পরে। তারা সেগুলিকে কালো রঙের একটি ভ্যাটে নিমজ্জিত করে ।  রঙ করার জন্য অক্সিডাইজড ছিদ্রগুলির মধ্যে এবং এই ঢালাইয়ের পরবর্তী অংশের পৃষ্ঠকে সিল করে। আইএসসি অফ সিক লো এক্সপেনশন গ্লাস টেলিস্কোপের প্রাথমিক আয়না হয়ে উঠবে । 

একটি ডায়মন্ড এজ টুল একটি গণনাকৃত লেজের উপর ঘোরে। গ্লাসটিকে কিছুটা অবতল করে তোলে অবতল প্রোফাইলকে উন্নত করতে একজন কর্মী গ্লাসটিকে ঘষিয়া তুলিয়া তুলিয়া  ফেলিতে সক্ষম। একটি সূক্ষ্মভাবে কার্ভ ঢালাই লোহার ডিস্কের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। এবং এটিকে তারা যেভাবে ঘোরান লোহার ডিস্ক তার বক্রতাকে সূক্ষ্ম সুর করার জন্য ঘষিয়া  তুলিয়া ফেলিতে সক্ষম। কাচের উপর নিচে বিয়ার করে একজন কর্মী। স্ক্র্যাচের জন্য পৃষ্ঠ পরীক্ষা করার পরিবর্তে এবং একটি ক্যালিব্রেটেড গেজ ব্যবহার করে তিনি ডিস্কের ব্যাসার্ধ পরিমাপ করে নিশ্চিত করেন। যে অবতল প্রোফাইলটি সঠিক কাচের এখন কী ঘোরানো দরকার যখন নলাকার কাটার আমেস ডেড সেন্টার একটি গর্ত কাটতে পারে।এই কেন্দ্রের গর্তটি আমরা আগে যে বিভ্রান্তিগুলি দেখেছি তা মিটমাট করার জন্য আকারের এবং এটি কাঁচের পাশের টেলিস্কোপে আয়নাটিকে নিরাপদে ধরে রাখতে সক্ষম । করবে ডিস্ক একটি স্বয়ংক্রিয় হাতিয়ার হিসাবে দোদুল্যমান হয়। যৌগটিকে এটির বিরুদ্ধে ঘষে এটিকে পালিশ করার জন্য একজন কর্মী যে যৌগটির। কিছু অংশ একটি পলিশিং ডিস্কে প্রয়োগ করে এবং তার বিপরীতে কাচের পৃষ্ঠকে কাজ করে। বারবার এই হ্যান্ড পলিশিং পৃষ্ঠের যথেষ্ট উন্নতি করে ল্যাবরেটরি টেকনিশিয়ান প্রাথমিক মিরর গ্লাসটিকে একটি গ্রিডের সাথে তুলনা করেন। যে মাত্রাগুলি সঠিক তা যাচাই করার জন্য তিনি গ্লাসে একটি লেজারের লক্ষ্য রাখেন।

 একটি কম্পিউটার প্রতিফলিত আলো বিশ্লেষণ করে যদি কোণটি $১,০০০ দ্বারা বন্ধ থাকে। চুল টেলিস্কোপের ছবি ঝাপসা হতে পারে । গ্লাসটি এখন তার আয়না শেষ করার জন্য প্রস্তুত । একটি ভ্যাকুয়াম চেম্বারে মুখের দিকে তাকায় তাদের কাছে অল্প পরিমাণে টাইটানিয়াম অক্সাইড সিলিকন মনোক্সাইড এবং অ্যালুমিনিয়াম ছিল। তারা চেম্বারটি শক্তভাবে বন্ধ করে এবং বিষয়বস্তুগুলিকে আবরণ করে। এবং তারপরে বেশিরভাগ পাম্প করে এর ভিতরে একটি আংশিক ভ্যাকুয়াম তৈরি করছে। একটি ৬০০০ ভোল্টের ইলেক্ট্রোড সক্রিয় করে। যা এখন ঘূর্ণায়মান কাচের ডিস্কে আয়নগুলির একটি উজ্জ্বল স্রাব। ছড়ায় এই আয়নগুলি গ্লাস থেকে যে কোনও দীর্ঘস্থায়ী দূষককে বিস্ফোরিত করে এটিকে একটি গুরুতর পরিষ্কার করতে তারা অ্যালুমিনিয়াম টাইটানিয়াম এবং সিলিকনকে গরম করে। বাষ্পের একটি মেঘের মধ্যে সেই বিনুনিটির কোনটি পেলেট অ্যাডামস ঘনীভূত অবতরণ কাচের পৃষ্ঠে একটি চকচকে আয়না তৈরি করে। এই অত্যন্ত প্রতিফলিত আবরণ প্রয়োগ করার জন্য মাত্র কয়েক মিনিটের জন্য এই টেলিস্কোপ আয়না।

 এখন আকাশের তারা এবং গ্রহ থেকে আলো প্রতিফলিত করার জন্য প্রস্তুত। প্রাথমিক আয়নার জন্য ধাতব হাউজিং এর পরবর্তী লেন্সগুলিতে তিনি নব দিয়ে সম্পূর্ণ আইপিসের জন্য একটি মাউন্ট মেকানিজম যুক্ত করেছেন। ফোকাস করার জন্য তিনি অ্যাসেম্বলির উপর ফ্লিপ করেন। এবং সেই নির্ভুলভাবে তৈরি আয়নাটিকে হাউজিং এর উপর স্লাইড করেন কর্ক রিংটি আয়নাটিকে কুশন করে। যাতে একটি স্ক্র্যাচ ছাড়াই একটি ধরে রাখার রিং ইনস্টল করা যায়। টেলিস্কোপের প্রাথমিক আয়নাটি এখন তিনটি টুকরো একসাথে থাকার জন্য নিরাপদ। পার্ট বাফেল তারপর টেলিস্কোপ মিরর কেন্দ্র থেকে টিউন করার জন্য লেন্স হোল্ডারে স্ক্রু করে। সে বিস্ময়কর মিরর অ্যাসেম্বলিতে যোগ দেয় টেলিস্কোপ থেকে দাঁতে ইতিমধ্যে একটি সেকেন্ডারি মিরর দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে। যা বড় করার জন্য প্রাথমিক আয়না থেকে প্রতিফলিত চিত্রগুলিকে বাউন্স করবে। এবং দেখতে এই টেলিস্কোপটি তৈরি করতে প্রায় ছয় সপ্তাহ সময় লাগছে। এবং এখন এটি মহাবিশ্বের রহস্য উদঘাটনে সাহায্য করতে প্রস্তুত।


টেলিস্কোপ কিভাবে তৈরি হয়
টেলিস্কোপ তৈরি

ঘরে তৈরি টেলিস্কোপ

দূরের কোনো কাঙ্খিত বস্তুকে কাছে থেকে দেখতে কার না ভালো লাগে । ঠিক ধরেছেন আজকে আমি এমন একটা বিষয় নিয়ে বলব যেটা আমাদের কাঙ্খিত বস্তুটাকে কাছে থেকে দেখতে সাহায্য করবে । বসলাম টেলিস্কোপ এর কথা ভাবছেন এটা কিভাবে সম্ভব টেলিস্কোপ  আপনি আপনার বাড়িতে বসে বাসায় বসে বানাতে পারবেন । তো চলেন শুরু করি :-একটা কনটিনার আর এটা দেখে বুঝতে পারতেছেন যে এটা হচ্ছে ব্যাডমিন্টন খেলার সাথে জড়িত আরেকটা কনটিনার আমি ব্যবহার করলাম । সেটা হচ্ছে বডি স্প্রে বা পারফিউমের যেটা সেই কথাটা আমি একটু গ্রাম ব্যবহার করব ।একটা মার্কার কলম । টেপ কাটার ব্লেড ১৬০ আর আমার মূল উপাদান তার মধ্যে হচ্ছে লেন্স ।

 লেন্স আমি ব্যবহার করবো একটা হচ্ছে আমার অবজেক্টিভ লেন্স আরেকটা হচ্ছে আমি দুটো লেন্স ব্যবহার করব । ওকে এখন প্রথমে আমরা যে কাজটা করব আমাদের এখানে দেয়া আছে । আমি জাস্ট এটা হচ্ছে আমার এই যে অবজেক্টিভ লেন্স । আমি আরেকটা বৃত্ত আছি এখন আমি কাটার দিয়ে এটাকে কাটবো । আরেকটা জিনিস দেখে আমি ঠিক আমার এই নাম দিয়ে একটা বৃত্ত দিয়েছি । আর এইটাতেই যেখানে আমি ব্যবহার করবো । সেজন্য আমি খুবই সতর্কতার সাথে তাকে একদম পরিমাণমতো কেটে নিবো । আমি যখন একটা টেলিস্কোপ বানাবো আমি এখানে টেলিস্কোপ এর ছবি আঁকার চেষ্টা করছি । এটা হচ্ছে আমার আজ থেকে এসে একটা বিন্দুতে মিলিত হবে । এটাকে বলে ফোকাস বিন্দু ও ফোকাস বিন্দু হবে আমাকে অবশ্যই আমার লেন্সের ফোকাস বিন্দু মেপে নিতে হবে । কিভাবে মাপবে আমি দেখাচ্ছি আপনি বিভিন্নভাবে মাপতে পারেন । 

যখন আমরা সেই রকম তখন আমরা কোথায় গিয়ে সেটা ভালো দেখাচ্ছে । যে জায়গাটাতে ভালো দেখাচ্ছে সেটা হচ্ছে আমাদের ফোকাস বিন্দু । থেকে কিভাবে লেন্সের ফোকাস বিন্দু নিয়ে নিয়েছে আমার অবজেক্টিভ লেন্সের ফোকাস দূরত্ব লেন্সের ফোকাস দূরত্ব সেন্টিমিটার । ৩ সেন্টিমিটার ৪৪৪ তাহলে আমাকে আমার কন্ঠ এমন ভাবে কাটতে হবে যেন আমার কাছাকাছি থাকে । আমার এটাতো আপডাউন করে ভিতরে ঢুকবে আমি এমন ভাবে কাটতে হবে । কারণ হচ্ছে না হলে আপনার হাত কেটে যেতে পারে । আমি আরেকটা জিনিস খেয়াল করে এরকম করে কেটে দিয়েছি এটার ব্যবহার আমি একটু পরে বলব । আর এটাও কাটা হয়ে গেছে আর আমি এটা একটু আগেই কইরে রাখছি । এটা কি আমি গোল করেছি সেটা ঠিক করে ওকে দেখা যাক । আমার প্রথম কথা হচ্ছে আমাকে আমি খুব সুন্দর করে এর ভিতরে এবং সতর্কতার সাথেআমার অবজেক্টিভ লেন্স থাকে । 

আমি খুব সুন্দর করে এর ভিতর দিয়ে স্লোলি এবং সতর্কতার সাথে ঢুকিয়ে দিলাম । এবার এই যে কফিটা আমি কেটেছিলাম আমার অফিসের জন্য সেট করার জন্য এটাকে আমি খুবই সতর্কতার সাথে এটার মধ্যে দিয়ে দিচ্ছি । এজন্য এরকম করে কেটে দিয়েছিলাম মার্কেটের হয়ে যেত এখন আর বের হতে পারবে না । সেটা আমি এবার এখানে রাখবো আমি তাকে আমি খুব সুন্দর করে একদম সেট করে নিয়েছি । এবার আমি যে কাজটা করব আমার এই বড় কন্ঠে নাতে খুবই সতর্কতার সাথে তাকে আমি খুবই সতর্কতার সাথে করার জন্য রেখেছি । আমি একটা কষ্ট দিয়ে খুব সুন্দর করে একদম সেট করে নিয়েছি । এবার আমি যে কাজটা করব আমার এই বড় কনটেইনার তাতে খুবই সতর্কতার সাথে এইটা কে আমি ভিতরে ফেলবো খুবই সতর্কতার সাথে । খুবই স্মার্ট হয়ে গেল করার জন্য আমরা করে রেখেছি দেখা যাচ্ছে যে কারণে আমি আমার জিনিসটা করতে চাই । তাহলে আমি এই জায়গাটাতে আমি এখানে কিন্তু অলরেডি কালার দিয়ে দিয়েছি । জিজ্ঞেস করতে পারেন আমি গানটা দিয়ে কি করছি? আমি গামছা দিয়ে আমার মধ্যে আগেই আমার লেন্স থাকে সেট করে নিয়েছি । আমার অফিসের জন্য আমি নিয়ে নিয়েছি এবার আমি এখানে করাবো ভিতরে ঢুকিয়ে ফেলবে । খুবই সতর্কতার সাথে খুবই স্মার্ট হয়ে গেল দেখা যাচ্ছে যে কারণে আমি আমার জিনিসটা করতে চাই তাহলে আমি এখানে কিন্তু দিয়ে দিয়েছি । এটা দিয়ে দিয়েছি জিজ্ঞেস করতে পারেন আমি কি করছি আমি গামছা দিয়ে জামার মধ্যে আগেই আমার লেন্স থাকে সেট করে নিয়েছি । 

সুন্দর করে মরে নিচ্ছি যেন জিনিসটা সুন্দর দেখা যায় । দেখেন আমি নিয়েছি এবং দেখাচ্ছে এখন একটু খেয়াল করবেন আমি কিন্তু এটা কিন্তু আমার বের হয়ে আসতে পারবে না । কারণ আমি মাথাটা সিস্টেম করে দিয়েছিলাম আর এটাও ভিতরে ঢুকতে পারবে না । কারণ এখানে আমি করে নিয়েছি এবার করা যাচ্ছে এবং আপনারা দেখতে পাচ্ছেন চমৎকার এবং সুন্দর আপনি আপনার বাসায় বসেই অনেকটা বলবো । আমি ফেলনা থেকেই কারণে যে জিনিস গুলো অনেক  খেলনা থেকেই খুব চমৎকার একটা টেলিস্কোপ হয়ে গেল । এবার আমি একটু দেখা দিয়ে আমরা কত গুন বড় করে কোন বস্তু দেখতে পারবো । আমি এখানে চেষ্টা করছি আমার প্রথম প্রকাশ লেন্সের ফোকাস দূরত্ব এবার আমি দেখব । আমার প্রতিবিম্ব কেমন হবে আমাদের প্রতিবিম্বের করতে হবে । অবজেক্টিভ লেন্সের ফোকাস দূরত্ব বাড়ে দূরত্ব আমার রেজাল্ট ৭.৫ আমরা দেখতে পাচ্ছি । যে আমরা আমাদের রিয়েল বস্তু থেকে ৮ গুণ বড় করে দেখতে পারব না । থাকবে তারা ম্যাগনিফিকেশন হবে ম্যাগনিফাইং হবে তফাৎ করা যাচ্ছে । এবং দেখাও যাচ্ছে একটু যদি চেষ্টা করি দেখা যাচ্ছে আপনি চাইলে এরকম বানাতে পারেন । আর হ্যাঁ ভালো লেগে থাকে অবশ্যই লাইক করবেন  ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আনন্দে থাকবেন।

ধন্যবাদ

Don't Miss
© all rights reserved
made with by templateszoo