Responsive Ad Slot

ধূমকেতু লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
ধূমকেতু লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

বিরল ঘটনা মহাকাশে, ধূমকেতু থেকে বেরিয়ে আসছে যেন আগ্নেয়গিরির লাভা

কোন মন্তব্য নেই

সোমবার, ৮ নভেম্বর, ২০২১

ধুমকেতু হল ধুলো বরফ ও গ্যাসের তৈরি এক ধরনের মহাজাগতিক বস্তু। ধূমকেতু একটি ক্ষুদ্র বরফাবৃত সৌরজাগতিক বস্তু যা সূর্যের খুব নিকট দিয়ে পরিভ্রমণ করার সময় দর্শনীয় কমা ,একটি পাতলা, ক্ষণস্থায়ী ও বায়ুমন্ডল । এবং কখনও লেজও প্রদর্শন করে । ধূমকেতুর নিউক্লিয়াসের ওপর সূর্যের বিকিরণ ও সৌরবায়ুর প্রভাবের কারণে এমনটি ঘটে থাকে ।


ধূমকেতু থেকে বেরিয়ে আসছে যেন আগ্নেয়গিরির লাভা
ধূমকেতু থেকে বেরিয়ে আসছে যেন আগ্নেয়গিরির লাভা

ধূমকেতুর আগ্নেয়গিরির লাভা

ফ্লোডিং কমেন্ট ঘটনা মহাকাশে ধুমকেতু থেকে বেরিয়ে আসছে । যেন আগ্নেয়গিরির লাভা সেই নিয়ে খবর দিতে চলে এলাম । বন্ধুরা চলে আসি খবরে যেন হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে জেগে উঠছে আগ্নেয়গিরি । বলা যেতে পারে জেগে উঠেছে আগনিওগিরি গলগল করে বেরিয়ে আসছে লাভা আর তাতেই আলোকিত হয়ে উঠছে চারপাশ । সেভাবেই হঠাৎ অসম্ভব উজ্জ্বল হয়ে উঠতে দেখা গেল একটি ধূমকেতুকে । এমন ধূমকেতুর হইল এই প্রথম এখনো পর্যন্ত আমাদের চোখে ধরা দিয়েছে যে বৃহত্তম ধুমকেতু । ধুমকেতু তাদের অন্যতম আকারে হেলবপ ধুমকেতু সুবিশাল গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকে হেলবপ ধুমকেতু উজ্জ্বলভাবে দেখা গিয়েছিল । পৃথিবীর আকাশে ১৯২৭ সালে আবিষ্কৃত হলেও এই ধূমকেতুটিকে এর আগে হঠাৎ এতটা উড়তে দেখা যায়নি । 

ধূমকেতুটির নাম ২৯টি ধূমকেতুটি সূর্যকে প্রদক্ষিণ করছে । অনেক অনেক দূরের কক্ষপথের শনি ও বৃহস্পতি মাঝামাঝি জায়গা থেকে ব্রিটিশ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল এসোসিয়েশন এর অ্যাড এন্ড রিমুভস বিভাগের প্রধান জানিয়েছেন । গত ২৫ সেপ্টেম্বর আকাশের নক্ষত্রের দিকে নজর রেখে টেলিস্কোপে ধরা পড়ে । এই ধূমকেতুটি উজ্জ্বলতা হঠাৎই অসম্ভব বেড়ে গিয়েছে । তার কিছুদিন পরে তা কিছুটা কমতে ও দেখা যায় পরে আবার খুব উজ্জ্বল হয়ে ওঠে । ধূমকেতুটি দুদিনের মধ্যে ধূমকেতুটিকে অন্তত ৫ বার খুব উজ্জ্বল হয়ে উঠতে দেখা গিয়েছে । মনে হচ্ছে সেই ধূমকেতু তার ভেতর থেকে অত্যন্ত উত্তপ্ত মহাকাশের ছুঁড়ে দিচ্ছে । আগ্নেয়গিরি থেকে যেভাবে বেরিয়ে আসে যেন একের পর এক বিস্ফোরণ হচ্ছে । ধূমকেতুতে কম সময়ের মধ্যে ধূমকেতুটির উজ্জ্বলতা স্বাভাবিকের চেয়ে ২৫০ গুণ বেড়ে যায় তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক বলেছেন । 

এত বড় বিস্ফোরণের ঘটনা এর আগে আর হয়নি এই ধূমকেতুতে এর আগে এতটা উজ্জ্বল হয়ে উড়তে দেখা যায়নি । ধূমকেতুটিকে গত ২৪ অক্টোবর আবার বিস্ফোরণ হয়েছে । তাতে এই ধুমকেতু কি কি পদার্থ উগলে দিচ্ছে তা জানার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে হাবল টেলিস্কোপ । টেলিস্কোপ এর এখন কর্মক্ষমতা একেবারেই নেই তবে অন্যান্য দিক থেকেও নজর রাখা হচ্ছে । ধূমকেতু থেকে ছিটকে বেরিয়ে আসা ১০০ মিটার আকারে বস্তুগুলোকে দেখার চেষ্টা করা হচ্ছে । এই পাথর খন্ড গুলি থেকে পড়ে বৃহস্পতির মুলুকে কিছু নতুন ধুমকেতু তৈরি হতে পারে । কিন্তু ধূমকেতুটির উজ্জ্বলতা হঠাৎ এত বেড়ে গেল কেন আর সেই ঘটনা কেন পর্যায়ক্রমে ঘটেই চলেছে সেই রহস্যের জট এখনো খুলতে পারেননি । জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা তাদের ধারণা হয়তো এই ধূমকেতুর অভ্যন্তরে কোন পরিবর্তন ঘটছে । এ বন্ধুরা এটা ছিল কমিটি নিয়ে একটা তথ্য মূলক পোষ্ট আশা করি ভালো লেগেছে সঙ্গে থাকবেন ।আমাদের লাইক শেয়ার অবশ্যই করবেন আর কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত জানাবেন । আসি আবার দেখা হবে সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন

ধূমকেতু আসলে কি ? ধূমকেতু কবে দেখা যাবে

কোন মন্তব্য নেই

মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১

 

আমাদের রাতের আকাশে মাঝে মাঝেই এক অদ্ভুত জিনিস এর দেখা মেলে । উজ্জ্বল নক্ষত্রের মতো দেখতে এক বস্তু যার পেছনে ছাতার মতো লেগে থাকা উজ্জ্বল হয়েছে । পৃথিবী থেকে রাতের আকাশে মাঝে মাঝে দেখা মেলা বস্তুটিকে আমরা ধুমকেতু বলে  থাকি । এই ধুমকেতু কিছুদিনের জন্য পৃথিবীর আকাশে দৃশ্যমান হয়ে আবার হারিয়ে যায় । মহাকাশের অন্ধকারে তবে তারা ফিরে আসে এক যুগ পর । তাই মানুষের এক জীবনে কোন নির্দিষ্ট ধূমকেতু দেখা সম্ভব নয় ।আর যদিও দেখতে পায় তা খুবই ভাগ্যের ব্যাপার । কোথা থেকে আসে এবং কিছুদিন থেকে আবার কোথায় হারিয়ে যায় এদের ফিরে আসতে এত দীর্ঘ সময় লাগে যে এক জীবনে দেখা সম্ভব নয় । ধূমকেতুর অংশের প্রস্তুতি কি ও কিভাবে তৈরি হয় এসব কিছুই জেনে নিন আজকের পোষ্টে ।


ধূমকেতু আসলে কি ? ধূমকেতু কবে দেখা যাবে
ধূমকেতুর আসল ছবি

ধূমকেতু কি

ধুমকেতু হল ধুলো, বরফ ও গ্যাসের তৈরি এক ধরনের মহাজাগতিক বস্তু। ধূমকেতুর নিউক্লিয়াসের ওপর সূর্যের বিকিরণ ও সৌরবায়ুর প্রভাবের কারণে এমনটি ঘটে। ধূমকেতুর নিউক্লিয়াস বরফ, ধূলা ও ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পাথুরে কণিকার একটি দুর্বল সংকলনে গঠিত। প্রস্থে কয়েকশ মিটার থেকে দশ কি: । 

ধুমকেতু হল বড় পাথর ও ধূলিকণার মিশ্রণে তৈরি এক মহাজাগতিক বস্তু ।যার সৃষ্টি সৌরজগতের শেষ প্রান্তে থাকা ও ওর থেকে বিরাট বড় ফ্যান মেঘ ভেঙে গিয়ে সূর্যের মাধ্যাকর্ষণ শক্তির টানে এরা সূর্যের দিকে ছুটে চলে । এবং সূর্যকে ঘিরে এক লম্বা উপবৃত্তাকার কক্ষপথে তৈরি করে । এই বৃত্তাকার পথে যখন সূর্যের খুব কাছে আসে তখন সূর্যের প্রচণ্ড তাপে গলে জলীয় বাষ্পে পরিণত হয় । সেই সঙ্গে ধূলিকণার সমন্বয়ে ধূমকেতুর পথে ভেসে থাকে এই অবস্থায় সূর্যের আলো ধূমকেতুর করলে মূল বরফখণ্ড অর্থাৎ ধুমকেতু উজ্জ্বল হয়ে আকাশে দেখা যায় । সেই সঙ্গে তার পেছনে ফেলে আসা জলীয় বাষ্পের গ্যাস ও ধূলিকণা অধিষ্ঠিত থাকতে দেখা যায় । 

এই ধুমকেতু সূর্য থেকে যত দূরে যায় ততই ঠান্ডা হয়ে যায় এবং তার মিলিয়ে যায় । আবার ঘুরে সূর্যের কাছে এলে তার লেজ তৈরি হয় তখন আমরা রাতের আকাশে তাকিয়ে ধুমকেতু হিসেবে দেখতে পাই । এতগুলো যেহেতু সৌরমণ্ডলের শেষ সীমানা থেকে সৃষ্টি হয় তাই এদের কক্ষ পথ অনেক লম্বা হয় । তাই এদের ফিরে আসার সময় অনেক বেশি এইসব ক্ষেত্রে এক মনোরম দুশো বছরের কম সময়ে যারা কক্ষ পথ ভ্রমণ সম্পন্ন করে । বা রাতের আকাশে ফিরে আসে তাদের বলে স্বল্পকালীন ধূমকেতুর যেমন হলো ধূমকেতু কত বছর অন্তর আমাদের রাতের আকাশে ফিরে আসে । আর যারা দুশো বছরের বেশি সময় কক্ষ পথ ভ্রমণ সম্পূর্ণ তাদের বলে দীর্ঘকালীন ধুমকেতু কয়েক লক্ষ বছর পর্যন্ত হতে পারে । যেমন দুই হাজার কুড়ি সালে দেখা যাচ্ছে আবার দেখা যাবে সাড়ে ৬ হাজার বছর পর এখনো পর্যন্ত প্রচুর ধুমকেতু আমাদের সৌরমণ্ডলের আবিষ্কৃত হয়েছে । 

আবার অনেক ধূমকেতু আছে যেগুলোর হদিশ মানুষের এখনো অজানা সেগুলো এখন হয়তো আছে সৌরমণ্ডলের বাইরে ।এক যুগ পরে আসবে সূর্যের কাছে এই ধূমকেতুর অস্তিত্ব এক অনিশ্চিত ধূমকেতুর মুলটি দৈর্ঘ্যে প্রায় ১০ কিলোমিটার হয়ে থাকে । সূর্যের তাপে গলে জলীয় বাষ্পের আবরণে তার আকার দাঁড়ায় প্রায় ৪০ হাজার কিলোমিটার । এবং এতে ১০ লক্ষ কিলোমিটার প্রতিবার ঘোরার সময় ধূমকেতুর মূল ভূখণ্ড ত্যাগ করে ছোট হতে থাকে । এবং তার ক্ষয় হতে থাকে সাধারণভাবে স্বল্পকালীন ধুমকেতু সূর্যকে প্রায় ১০০০ বার প্রদক্ষিণ করতে পারে । এবং দীর্ঘ ধূমকেতুর ১০% পঞ্চাশবার সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে । আর মাত্র ১% ২০১২ সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে পারে ।দীর্ঘকালীন ধুমকেতু যেহেতু অনেক লম্বা রাস্তা অতিক্রম করে তাই যাত্রাপথে অন্য গ্রহের আকর্ষণে তার দিক পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে । এমনকি গ্রহাণু সংঘর্ষে ভেঙেও যেতে পারে অন্য কোন সৌরমণ্ডলের আকর্ষণে ছুটে যেতে পারে । নানা অজানা মহাজাগতিক বিষয় ঘটতে পারে তাই দীর্ঘকালীন ধুমকেতু গুলি বেশিরভাগই অনিশ্চিত তবে ধুমকেতু সৌন্দর্য রাতের আকাশে যে অপরূপ শোভা সৃষ্টি করে তা দেখার জন্য মানবজাতির সর্বদা আগ্রহের সঙ্গে অপেক্ষা করেন । 

ধূমকেতু গঠিত ও আসা

ধূমকেতু যে বাচ্চাদের জন্য পোষা প্রাণী যখন আপনি রাতের আকাশের দিকে তাকান এবং সমস্ত জ্বলন্ত তারা দেখেন তখন আপনি কি কখনও ভাবতে পারেন যে সেখানে আর কি আছে । আপনি জানেন সেখানে একটি চাঁদ আছে আপনি জানেন যে সেখানে গ্রহ আছে কিন্তু আপনি কি জানেন যে আকাশে অন্যান্য বস্তু আছে । সেইসাথে এই বস্তুগুলির মধ্যে একটিকে ধূমকেতু বলা হয় । তাই ধূমকেতু ঠিক কী একটি মন্তব্য হল এক ধরনের স্পেস রক যদিও তারা উজ্জ্বল, এটি সৌরজগতের বাইরের অংশে খুব ছোট যা পৃথিবী থেকে দেখা যায় না । 

সাধারণত শুধুমাত্র জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন টেলিস্কোপগুলি আমাদের সৌরজগতের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় এই মন্তব্যগুলি দেখতে পারে । ধূমকেতুগুলি পৃথিবীর কাছাকাছি রয়েছে যা নিয়মিত টেলিস্কোপ দিয়ে দেখা যায় না । এটি বিরল তবে এটি কখনও কখনও এমন একটি মন্তব্য যথেষ্ট উজ্জ্বল হয় যা টেলিস্কোপ ছাড়াই দেখা যায়। একটি ধূমকেতু দেখতে যথেষ্ট ভাগ্যবান হবেন উজ্জ্বলতম নক্ষত্রের চেয়েও উজ্জ্বল বা উজ্জ্বল নক্ষত্রের চেয়েও উজ্জ্বল যদি আপনি তাদের একটি দেখার সুযোগ পান । তবে এটি জীবনে একবারের জন্য একটি সুযোগ হবে যা ধূমকেতু দিয়ে তৈরি একটি ধূমকেতু ধূলিকণা এবং বরফ যা সূর্যের চারপাশে ঘুরে বেড়ায় মানুষ কখনও কখনও ধূমকেতুকে নোংরা তুষার বল বলা হয় । যদি আপনি রাস্তায় তুষার দেখতে পান তবে আপনি এতে নুড়ি এবং ময়লা দেখতে পাবেন ।

 যা আকাশে একটি ধূমকেতুর মতো দেখায় ধূমকেতুর একটি বরফ মাঝখানে যা জল দিয়ে তৈরি । এবং যে গ্যাসগুলি হিমায়িত হয় সেগুলি শিলা এবং ধাতুর বিটগুলির সাথে মিশ্রিত হয় । এবং কালো ধুলোর একটি স্তর দ্বারা আবৃত থাকে যখন এটি সূর্যের কাছাকাছি আসে সূর্যের তাপের ফলে বরফ গলে যায় । এবং একটি গ্যাস ধূলিকণা ছড়িয়ে পড়ে মন্তব্যের কেন্দ্রে বা নিউক্লিয়াসের চারপাশে এই ধূলিকণাগুলি ধূমকেতুর মাথায় একটি মেঘ তৈরি করে যাকে বলা হয়, ওহ, । এটি বেশ দুর্দান্ত কারণ আমি কেবল স্টারডাস্ট, টেম্প টেলস এবং এই গল্পগুলির মতো একটি বড় বাউলের ​​মতো জ্বলজ্বল করি না । 

প্রকৃতপক্ষে ধূমকেতুর লেজটি আসলে একটি মন্তব্যের সবচেয়ে দৃশ্যমান অংশ যা মন্তব্যটিতে সূর্যের আলো জ্বলতে থাকে । যা লেজগুলিকে উড়িয়ে দেয় যাকে বলা হয় ডাস্ট টেল । এবং আয়ন লেজ কখনও কখনও লক্ষ লক্ষ মাইল লম্বা হতে পারে । লেজগুলি তৈরি করা হয় আপ গ্যাস এবং ক্ষুদ্র ধূলিকণা যে blo হয় সৌর বায়ু দ্বারা নিউক্লিয়াস থেকে দূরে ধূমকেতুগুলি কীভাবে জলের বরফ এবং অন্যান্য অণুর সাথে আবৃত ধূলিকণা তৈরি করে । বা একটি মন্তব্যের শুরুতে যখন ধূলিকণাগুলি একত্রিত হয় তখন এটি লেগোসের মতো যা একে অপরের উপরে স্তুপীকৃত হতে থাকে অবশেষে মিলিত হয় । ধূলিকণার আকার আমি দেখি শিলার মাধ্যাকর্ষণ তারপর সেই বরফের শিলাগুলিকে একত্রে টেনে নিয়ে যায় । এবং আপনি একটি মন্তব্য পান কোথা থেকে ধূমকেতু আসে সৌরজগতের দুটি স্থান থেকে ধূমকেতু আসে । প্রথম স্থানটিকে কুইপার বেল্ট বলা হয় । কুইপার বেল্ট নেপচুনের কক্ষপথের ঠিক বাইরে দ্বিতীয় স্থানটিকে উর্ট মেঘ বলা হয় । এই অঞ্চলটি কুইপার বেল্টের চেয়ে অনেক দূরে, তাই এই অঞ্চল থেকে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে বেশি সময় লাগে । কি কোনো বিখ্যাত মন্তব্য আছে কি আপনি বেটচা হ্যালির ধূমকেতু সবচেয়ে বিখ্যাত মন্তব্যগুলির মধ্যে একটি । 


ধূমকেতু আসলে কি ? ধূমকেতু কবে দেখা যাবে
ধূমকেতুর আসল ছবি

ধূমকেতু দেখা যাবে

এই ধূমকেতু একবার দেখা যায় প্রতি ৭৫ বছর পর বিজ্ঞানীরা ভবিষ্যদ্বাণী করেন । যে এটি পরবর্তী ২০৬১ সালে দৃশ্যমান হবে বিখ্যাত লেখক মার্ক টোয়েন একবার বলেছিলেন যে হ্যালির ধূমকেতু যেদিন পাশ দিয়ে গেছে সেদিনই তার জন্ম হয়েছিল এবং তিনি মারা যান যখন এটি যথেষ্ট নিশ্চিত হয়ে ফিরে আসে তখন সে মারা যায় 74 বছর পরে হ্যালির ধূমকেতু ফিরে আসার ঠিক একদিন পর হেল-বপ হল আরেকটি বিখ্যাত ধূমকেতু যা ক্যালিফোর্নিয়ার কিছু লোক একবার বিশ্বাস করেছিল, একটি মহাকাশযান জুতা-লেভি 9 ছিল মন্তব্যের একটি স্ট্রিং যা ক্যাপচার করেছিল বৃহস্পতির মাধ্যাকর্ষণ এই মন্তব্যগুলি 1990 সালের 16ই জুলাইয়ের সপ্তাহে সূর্যের পরিবর্তে বৃহস্পতির চারপাশে প্রদক্ষিণ করতে শুরু করেছিল এই মন্তব্যগুলির জন্য বৃহস্পতিতে বিধ্বস্ত হয়েছিল যখন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলেছিলেন যে কী অবিশ্বাস্য দৃষ্টিভঙ্গি অ্যাডভেঞ্চার ধূমকেতু যা পৃথিবী থেকে দেখা যায় প্রতি পাঁচ থেকে দশ বছরে একবার ঘটে।

সৌরজগতের অভ্যন্তরীণ অংশে হ্যালির ধূমকেতু শেষ বার উপস্থিত হয়েছিল ১৯৮৬ সালে । এবং এরপরে আবার আসবে ২০৬১ সালের মধ্যভাগে।

অনুসূর: ০.৫৮৬ জ্যো.এ. (শেষ অনুসূর অবস্থান: ৯ ফেব্রু:

আবিষ্কারক: প্রাগৈতিহাসিক (পর্যবেক্ষণ) এডমন্ড হ.

আপাত মান: ২৮.২ (২০০৩ সালে)

নিকটবিন্দুর সময়: ২৮ জুলাই ২০৬১ ।

মহাকাশের ধুমকেতু অন্যরকম একটি বিষয় ধূমকেতু কবে দেখা যাবে এবং হ্যালির ধূমকেতু সম্পর্কে আজ আমরা জানবো বিস্তারিত । বছর পর পৃথিবী দৃশ্যমান হয়ে ওঠে নাম রাখা হয় ধুমকেতু । ধুমকেতু সর্বশেষ ১৯৮৬ সালের 9 ফেব্রুয়ারি ২৮ শে জুলাই পৃথিবীতে দেখা যাবে । দেখা যাবে প্রথম ধারণা করেন যে ১৯৭২- ১৯৬৫ এবং সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে ১৯৭৭ থেকে ৯৮ সাল পর্যন্ত তথ্য থেকে দেখা যায় । যে একত্রিশ ১৯৮৪ সালের দূরবীন ধুমকেতু আবার এগুলো দেখলে মনে হয় । কোন অ্যাপস দিয়ে তৈরি এক ধরনের উজ্জ্বল ধূমকেতু পর্যবেক্ষণ করা গেছে । বিজ্ঞানীদের মধ্যে  ১০০ কোটিরও বেশি রয়েছে আমাদের সৌরজগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় পৃথিবীর আকাশে দেখা যায় । এবং আকাশযান ব্যবহার করে এটি পর্যবেক্ষণ করার সুযোগ পান । তা ছাড়া পৃথিবীতে আরেকটি জনপ্রিয় রয়েছে যেটি  ১৯৮৫ সালে এ কে আবিষ্কার করেন ।

Don't Miss
© all rights reserved
made with by templateszoo