Responsive Ad Slot

Latest

latest

এরোপ্লেন কে আবিষ্কার করেন?

আবিষ্কারকের তালিকা প্রথম লিওনার্দো দা ভিঞ্চি ১৪৫২ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন । তিনি একজন মহা চিত্তার তবে তাকে পুরো পৃথিবী শুধুমাত্র একজন চিত্রকার ছিলেন

মঙ্গলবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২১

/ by Nuralam

 

এরোপ্লেন কে আবিষ্কার করেন
এরোপ্লেন


এরোপ্লেন আবিষ্কার 

প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ যখন পাখিদের আকাশে উড়তে দেখতো তখন তাদের ইচ্ছে হতো পাখিদের মতো আকাশে   ওড়া । কিন্তু আজ থেকে এক হাজার বছর আগে কেউ কখনো ভাবতেও পারেনি যে ভবিষ্যতের দিনে এরোপ্লেনে করে যাত্রা করা এতটা সহজ ও সুরক্ষিত হয়ে যাবে ।১৫ শতাব্দী থেকে বৈজ্ঞানিক ইঞ্জিনিয়াররা আকাশে উড়ন্ত পাখিদের দেখে তাদের উপর বিভিন্ন ধরনের এক্সপেরিমেন্ট করেন । এবং আকাশে ওড়ার স্বপ্ন দেখেন আর তাদের এই স্বপ্নকে সত্যি করার জন্য তারা নিজেদের পুরো জীবন আবিষ্কারের পেছনে লাগিয়ে দিয়েছিলেন । তাদের মধ্যে কয়েকজন সফল হয়েছিলেন আবার কয়েকজন অসফল হয়েছিলেন । উড়োজাহাজ আবিষ্কারের কাহিনী অনেক বড় প্লেন এর মতো বারবার চালিয়ে দেখা যেত না । একবার আকাশে ওড়া নেই তা কিছুক্ষণের মধ্যেই মাটিতে ভেঙে পড়ে যেত আর সাথে সাথে তো তাই একটু করে বানিয়ে টেস্ট করা যেত না । একেবারে পারফেক্ট বানাতে হত সাধারণভাবে যে দুই ভাইকে এর আবিষ্কারক হিসেবে জানা যায় তাদের নাম হল উরিভি রাইট এবং উইলবার রাইট । তবে এ ছাড়াও আরো অনেক ইঞ্জিনিয়াররা এরোপ্লেন বানানোর চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু তারা এই এরোপ্লেন কে আকাশে উড়ানোর সময় কোন কোন দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়ে নিজেদের জীবন হারিয়েছিলেন । 

বন্ধুরা আমি আপনাদের সাথে আজকের পোষ্টে আবিষ্কারের ইতিহাস এবং সেই আবিষ্কারের জন্য নিজেদের জীবন অতিবাহিত করা মহান কিছু বৈজ্ঞানিক এর বিষয়ে আপনাদের জানাব । 

লিওনার্দো দা

আবিষ্কারকের তালিকা প্রথম লিওনার্দো দা ভিঞ্চি ১৪৫২ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন । তিনি একজন মহা চিত্তার  তবে তাকে পুরো পৃথিবী শুধুমাত্র একজন চিত্রকার ছিলেন । হিসেবে এমনটা নয় তিনি সে সময় একজন গবেষক ও ছিলেন তার তৈরি প্রত্যেকটি পেইন্টিং কিছু না কিছু রহস্য লুকিয়ে থাকত । আর এইসব দেখে অবাক হয়ে যেত লিওনার্দো দা  ভিঞ্চি কে পৃথিবীর প্রথম মানুষ বলা হয় উড়োজাহাজের প্রথম স্বপ্ন দেখেছিলেন । এবং সেটাকে বাস্তবায়ন করেছিলেন তাদের স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করতে তিনি দিনরাত এক করে দিয়েছিলেন । লিওনার্দো দা ভিঞ্চির সম্বন্ধে দিয়েছিলেন আর পরবর্তীকালে এই থিওরির উপর কাজ করেই অনেক সফল এরোপ্লেন আবিষ্কার করেছিলেন । তাদের মধ্যে প্রথমটি হলো ফেলাং মেশিং দেশের সবথেকে শ্রেষ্ঠ আবিষ্কার বলে মানা হয় । পাখি কিভাবে আকাশে উড়ে আর কিভাবে মাটিতে নেমে আসে অনেক সময় ধরে তিনি করেছিলেন । এরপর তিনি কাঠের সাহায্যে একটি স্লাইড দিয়ে  তৈরি করেছিলেন এতে পুলিশের ব্যবহার করা হয়েছিল  যাতে সহজে আকাশে উড়া যায় । আর সামনের দিকে নিয়ন্ত্রণের জন্য সাইকেলের রিং লাগানো ছিল আবিষ্কারের স্বপ্ন পূরণ হওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়ে যায় । ২০০ রামে ১৫১৯ সালে তিনি মারা যান । আবিষ্কার করার জন্য তিনি আরেকটি মেশিনে তৈরি করেছিলেন আর এই মেশিনের সাথে অনেকটা ম্যাচ করে তৃতীয় ধাপের পেইন্টিং এর মাধ্যমে সর্বপ্রথম উল্লেখ করেন । তাদের মত ছিল এই পেইন্টিং এর সাথে সাথে তিনি আরো অনেক জরুরী তথ্য দিয়েছিলেন । ১৫১৯ সালের মৃত্যুর পরে প্লেন বানানোর চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু তারা কেউই সফল হননি । আবিষ্কার হয়ে গিয়েছিল আবিষ্কার করেন তাদের নাম ছিল এবং ব্যবহার করা হয়েছিল । আরে ডায়ামিটার ১০ মিটার পর্যন্ত রাখা হয়েছিল ।

 ১৯ সেপ্টেম্বর ১৭৮৩ সালে এই বেলুনের এক্সপেরিমেন্ট করার জন্য একটি মুরগি হাঁস আরেকটি ছাগলকে হাওয়ায় উড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল । ১৫ মিনিট পর্যন্ত ছিল তারপর সেটি মাটিতে পড়ে যায় । এরপর যে মানুষকে বসিয়ে আকাশে উড়ানোর কথা চিন্তা করেন এর প্রায় এক মাস পর ২১ নভেম্বর ১৭৮৩ সালে একজন বৈজ্ঞানিক এবং একজন অধিকারী প্রথম হট এয়ার বেলুন যাত্রা করেন । তারা প্রায় ২৫ মিনিট ধরে ৯ মিটার পর্যন্ত যেতে পেরেছিলেন ।

অটো লেলিন

অটো লেলিন ১৮৪৮ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন বলেও জানিয়েছিলেন । ১৮৭০ সালে রয়েল টেকনিক্যাল একাডেমী বার্লিন থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং করেছিলেন । ১৮৯১ সালে তিনি তার প্রথম এক্সিডেন্ট করেছিলেন প্রথম তিনি গ্লাডিয়েটর এর সাহায্যে প্রায় ২৫ মিনিট পর্যন্ত আকাশে উঠতে পেরেছিলেন । ১৮৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি আলাদা আলাদা টেকনিকের সাহায্যে আকাশে ওড়ার যন্ত্র আবিষ্কার করেন । তারা এই পাঁচ বছরের এক্সপেরিমেন্ট এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি চিনি আড়াইশো মিটার পর্যন্ত উঠতে পেরেছিলেন । তিনি পুরো ২০০০ বার সাহায্যে আকাশে উড়ে ছিলেন । ১৮৯৬ সালে তিনি যখন নিয়ে আকাশে করছিলেন তিনি তাদের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন । তখন তিনি প্রায় ১৫ মিটার উঁচু থেকে মাটিতে পড়ে যান এই এক্সিডেন্ট এর ফলে তার ঘাড়ের হাড় ভেঙে যায় । আর একদিন পর তার মৃত্যু হয় ।

 এলবাট ডুমন

১৮৭৩ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন । মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন এরোপ্লেনে জন্মদাতা বলে মানা হয় । কাজ করতে করতে এরোপ্লেন আবিষ্কারের কথা ভাবেন তার বানানো প্রথম যন্ত্রটি প্রথমে হট এয়ার বেলুন আকাশে উড়ানো হয়েছিল । তার সাথে এই যন্ত্রটি আকাশে ওড়ানো হয় ১৮৯৮ সালে তিনি তার প্রথম চেষ্টা করেছিলেন তারপর অক্টোবর ১৯৭১ সালে তিনি তার শ্রেষ্ঠ আবিষ্কার কে আকাশে পুরো পৃথিবীতে এক ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন । তিনি ফ্রান্সের প্যারিসে আকাশে উড়িয়ে পর্যন্ত নিয়ে গিয়েছিলেন ।

উইল রাইট ও ব্রাদার্স

১৯৭১ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন অপ্রিল ১৮৬৭ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন উইল রাইট ব্রাদার্স নামে এর আবিষ্কারক হিসেবে জানা হয় ।১৭ ডিসেম্বর ১৯০৩ সালে পৃথিবীর সবথেকে প্রথম সাকসেসফুল আবিষ্কার করেছিলেন । ছোটবেলা থেকে আকাশে ওড়ার খুব ইচ্ছে ছিল তারা পাখিদের আকাশে উড়তে দেখে নিজেরা উড়তে চাইত । তবে এই স্বপ্ন পূরণ করার জন্য তাদের কাছে সেই পরিমাণ টাকা ছিল না । ওকে দেখে খুবই আগ্রহী হয় তারা শুরুর দিকে উঠিয়ে আকাশে উড়ে বেড়াতো তারা একটি সাইকেলের দোকানে কাজ করতো । আর সেখান থেকেই তাদের মাথায় আসে ছিল কিন্তু তা ঠিক টাইমে নির্দিষ্ট জায়গায় খুব কঠিন দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচতে ১৯০০ সালে একটি জায়গায় গিয়ে তাদের এক্সপেরিমেন্ট শুরু করে । এরপর ১৯০৩ সালে ইঞ্জিন সাহায্যে একটি উড়োজাহাজ আকাশে ওড়ায় । কিন্তু এটি মাত্র ৬ সেকেন্ড পর্যন্ত আকাশে উঠতে পেরেছিল । ইঞ্জিন এর সাহায্যে প্রথম এরোপ্লেন তৈরি হয়েছিল এরপর চতুর্থ প্রচেষ্টায় আকাশে উড়েছিল । ৮৩৫ ফুট পর্যন্ত যেতে পেরেছিল এরপর তারা বারবার এই এক্সপেরিমেন্ট করতে থাকে । একসময় সাকসেসফুল হয় আর তারা প্রায় ৩৫ মাইল প্রতি ঘন্টায় উড়িয়ে ছিল । কিন্তু এখনো পর্যন্ত এই দুই ভাই এর সম্বন্ধে কেউ কিছুই জানত না । আর না কোন সংবাদপত্রে এই দুই ভাইয়ের কথা কখনো উল্লেখ করা হয় । ১৯৬০ সালে ফ্রান্সে যায় যেখানে বসে পুরো দুনিয়ার সামনে ৯১ মিনিটে পর্যন্ত দূরত্ব অতিক্রম করেছিল । এই ঘটনার পর তাদের বেশ কিছু পুরুষ্কার দিয়ে সম্মানিত করা হয় । এরপর থেকে ১৯৭৯ সালের দিকে বেশ কিছুদিন বানানোর প্রচেষ্টা শুরু হয়ে গিয়েছিল । আর ১৯০৯ সালের পর্যন্ত লম্বা দূরত্ব অতিক্রম করেছিল । এরপর  ১৯১৯ সালে প্রথম এরোপ্লেন কে আবিষ্কার করেছিল । এরপর থেকে আর অভিনয়ের মাধ্যমে আধুনিক আবিষ্কার হয়েছে । তো কেমন লাগলো পোষ্টি আমাকে কমেন্টে অবশ্যই জানাবেন । যদি  ভাল লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই একটি লাইক করে দিন আর বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করে দিন । দেখা হবে পরের  ততই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন ।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Don't Miss
© all rights reserved
made with by templateszoo