Responsive Ad Slot

মহাকাশ ও জ্যোতির্বিজ্ঞান লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
মহাকাশ ও জ্যোতির্বিজ্ঞান লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

জ্যোতির্বিজ্ঞান এর জনক কে?

কোন মন্তব্য নেই

বুধবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২১

 

জ্যোতির্বিজ্ঞান এর জনক

বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিংয়ের মতে আধুনিক যুগে প্রকৃতি বিজ্ঞানের এতো বিশাল অগ্রগতির পেছনে গ্যালিলিওর চেয়ে বেশি অবদান আর কেউ রাখতে পারেননি। তাঁকে আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের জনক, আধুনিক পদার্থবিজ্ঞানের জনক এবং এমনকি আধুনিক বিজ্ঞানের জনক হিসেবেও আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে।

লুক স্কাইওয়াকার এবং হান সোলো-এর আগে তারা গ্যালাক্সিগুলির পূর্বের ডিফেন্ডারে ছিলেন । গ্যালিলিও টেলিস্কোপের পথপ্রদর্শক ছিলেন একজন প্রখ্যাত বিজ্ঞানী এবং ধর্মপ্রাণ খ্রিস্টান তিনি । তাঁর জীবনের বেশিরভাগ সময় এই ধারণাটিকে রক্ষা করতে কাটিয়েছিলেন যে সূর্য মহাবিশ্বের কেন্দ্রে ছিল তবে গির্জা । ১৬০০-এর দশকের গোড়ার দিকে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতেন যে বাইবেল শিখিয়েছে । যে পৃথিবী মহাবিশ্বের কেন্দ্র। রোমান ইনকুইজিশন তার বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির বিরুদ্ধে শাসন করেছিল । এবং গ্যালিলিও বাইবেল অধ্যয়নে সাহায্য করতে পারে বলে বিশ্বাস করতে ।অস্বীকার করেন এবং ১৬৩৩ সালে ৭০ বছর বয়সে তিনি বিশ্বাস করেন। তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত গৃহবন্দী করা হয়েছিল ৯ বছর পরে গ্যালিলিও একজন প্রাথমিক খ্রিস্টান ধর্মতত্ত্ববিদকে উদ্ধৃত করেছিলেন । যে ঈশ্বর তার কাজের মধ্যে প্রকৃতির দ্বারা পরিচিত এবং মতবাদ দ্বারা এটি প্রকাশ করা হয়েছে । শব্দ অভিজ্ঞতার বই যা motb পরিদর্শন করে ইতিহাসকে আকার দেয়। টিভি এই ঐতিহাসিক শর্ট ফিল্ম প্রচারণা দেখার জন্য ফিল্ম বিজ্ঞাপন এবং বইয়ের সাথে আলাপচারিতায় অংশ নিন এই শরত্কালে বাইবেলের যাদুঘর দ্বারা আপনার কাছে বইটি একসাথে আনা হয়েছে।


জ্যোতির্বিজ্ঞান এর জনক কে?
গ্যালিলিও

আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের জনক 

গ্যালিলিও গ্যালিলি একাধারে একজন পদার্থবিজ্ঞানী জ্যোতির্বিজ্ঞানী গণিতজ্ঞ এবং দার্শনিক ছিলেন । রেনে বৈজ্ঞানিক বিপ্লব এর সাথে কিভাবে সম্পৃক্ত বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং এর মতে আধুনিক যুগে প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের অগ্রগতির পেছনে গ্যালিলিওর চেয়ে বেশি অবদান রাখতে পারেননি । তাকে আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের জনক আধুনিক পদার্থবিজ্ঞানের জনক এবং এমনকি আধুনিক বিজ্ঞানের জনক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে । গ্যালিলিওর আবিষ্কার গুলি সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রেখেছে ইটালিয়ান বিজ্ঞানের জন্য । অন্য যে কোন বিজ্ঞানী তুলনায় অনেক বেশি এগিয়ে আছেন ১৫৬৪ সালে জন্ম হয় তার । সেখানকার ইউনিভার্সিটিতেই পড়াশোনা করতেন তিনি কিন্তু অর্থনৈতিক কারণে তাকে ১৫৯৮ সালে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার চাকরি যোগদান । ইউনিভার্সিটি ফ্যাকাল্টি পর্যন্ত তার কর্মস্থল এবং উল্লেখযোগ্য বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার আবিষ্কার করেন । তিনি যন্ত্রসংক্রান্ত দার্শনিক অ্যারিস্টোটল বলেছেন হালকা জিনিস এর তুলনায় দ্রুত চালু ছিল কিন্তু প্রমাণ করেন । এ ধরনের ঠিক নয় দুটো জিনিস দিতে পারে সামান্য স্থানচ্যুত হলে একসঙ্গে উচ্চতা থেকে ছাড়লে ভালা জিনিস একই সময়ে মাটিতে পড়ে প্রিয় হালকা জিনিস ফেলে এবং নিজের ধারণা সত্যি বলে প্রমাণ করেন । এটি ছিল উল্লেখযোগ্য আবিষ্কার হয় তার চেয়েও বড় কথা এসব পরীক্ষার সাহায্যে সমীকরণ করতে সক্ষম হন ।

 আধুনিক বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে অবদান অনস্বীকার্য আর মানুষ বিশ্বাস করবে গ্যালিলিও প্রমাণ করেছেন । এ ধারণা ভুল শক্তি পরিহার করা সম্ভব হয় তাহলে যে কোনো বস্তুর নির্দিষ্ট সময় ধরে চলতে পারে সবচেয়ে বিখ্যাত আবিষ্কার শিশুর মানসিক বিকাশের সুযোগ বাংলাদেশীদেরও ছিল । একজন বিখ্যাত বিজ্ঞানী প্রথম আধুনিক সূর্যকেন্দ্রিক সৌরজগতের প্রদান করেছিলেন । কোন প্রমাণ করেন কোন প্রমাণ করতে পারেননি তিনি তা প্রমাণ করে দেন তার আগেই আবিষ্কৃত হয় এবং যিনি সম্পর্কে খুব সামান্য কিন্তু তিনি প্রতিবার সেজন্য তার কাজ একটু আটকে থাকেনি । ওটার তুলনায় অনেক উন্নত টেলিস্কোপ আবিষ্কার করেছেন । গ্যালিলিও টেলিস্কোপ আবিষ্কার করেন মহাকাশের পর্যবেক্ষণ এবং এক বছরের মধ্যে অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে জানতে পারেন । পরীক্ষা করে দেখতে পেলেন চাঁদ পৃথিবীকে কেমন দেখায় আসলে ওটা মসৃণ নয় । আছে তাদের দিকে তাকিয়ে দেখলেন ওগুলো আসলে দুধের তৈরি নয় বরং লক্ষ কোটি তারার মেলা খালি চোখে প্রায় দেখাই যায়না । এর পর্ব সমূহ দিকে নজর দিলে নিয়ে নিও দেখতে পেলেন শনি গ্রহকে গোল করে ঘিরে রেখেছে কিছুতেই তাকে কেন্দ্র করে ঘুরে বেড়ায় । তারা চাঁদ সূর্যের দিকে নজর দিয়ে সৌর কলঙ্কে দেখতে পাওনি কেন অন্যরা আগেই পর্যবেক্ষণ করেছেন । 

কিন্তু গ্যালিলিও বিষয়টাকে মানুষের গোচরে আনেন শুক্র গ্রহের মতো গ্রহের দোষ আছে এমনি দেখতে পান । তিনি এসব আবিষ্কারের ফলে তাদের মতবাদ সত্যি বলে প্রমাণ হয় । প্রতিষ্ঠিত হয় যে পৃথিবীর সমস্ত গ্রহ নক্ষত্র সূর্যকে কেন্দ্র করে ঘোরে । আবিষ্কারের জন্য বিখ্যাত হয়েছেন খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের থেকে নির্দেশ দেয়া হয় এর ফলে নিরুপায় হয়ে বসে থাকতে হয় । স্বরবৃত্ত হিসেবে অভিষিক্ত ধর্মের প্রধান ধর্মগ্রন্থ ভ্যাটিকান সিটিতে প্রধান কার্যালয় অবস্থিত পরিধিস্থ বিধিনিষেধ তুলে নেন তিনি মনে করতেন । গবেষণাধর্মী লেখা রয়েছে সেটি প্রকাশ সংক্রান্ত অনুমতি নিয়ে তারপরও বই প্রকাশ হওয়ার পর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে তার । এবং ১৬০০ সালের নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করার অপরাধে বিচারের জন্য ধরে আনা হয় । কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোনো কঠিন শাস্তি পেতে হয় না কিছুদিন নিজের বাড়িতে গৃহবন্দী হয়ে কাটাতে হয় পরে আরও একবার শাস্তি পেতে হয় ।৭০ বছরের বৃদ্ধ বিজ্ঞানী কে বলা হয় পৃথিবী সূর্যের চারদিকে নয় বরং সূর্য পৃথিবীর চারদিকে ঘোরে এই কথাটা বলতে হবে তাকে । তাড়িয়ে কিন্তু এমনটা কখনোই বলেনি বরং উল্টোটাই বলেছেন তিনি উল্লেখ করেন তিনি প্রত্যাখ্যান করেননি । আমাদের আজকের আয়োজন কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে জানান ।

মহাকাশ ও জ্যোতির্বিজ্ঞান | Space and astronomy

কোন মন্তব্য নেই

শুক্রবার, ২২ অক্টোবর, ২০২১



মহাকাশ ও জ্যোতির্বিজ্ঞান
মহাকাশ ও জ্যোতির্বিজ্ঞান 


 জ্যোতির্বিজ্ঞান আসলে কি

আমি আপনাদের বলব সেটি অনেকের কাছেই অজানা আর যদিও বা আপনার বিষয়টি জানা থেকে থাকে তাহলে কংগ্রাচুলেশনস আপনার জানা এই গানের অর্থাৎ নলেজ এর দাম ইনফিনিটি টাকা দিয়ে এর তুলনা হয় না । আপনি আকাশের দিকে দেখুন কি দেখতে পাচ্ছেন বলুনতো আসলে এটা নির্ভর করে অর্থাৎ ডিপেন্ড করে আপনার দেখার ক্ষমতা এবং টাইম এর উপর । যদি দিন হয় তাহলে আপনি সূর্য দেখতে পারেন এবং যদি রাত হয় তাহলে আপনি চাঁদ দেখতে পাবেন এবং যদি আকাশ পরিষ্কার হয় রাত্রি বেলায় তাহলে আপনি তারা দেখতে পাবেন ।যদি আপনি কোন বড় শহরে থেকে থাকেন তাহলে হয়তো আপনি শ'দুয়েক তারা দেখতে পান ।

 কিন্তু যদি আপনি গ্রামে অথবা সমুদ্রের ধারে থেকে থাকেন তাহলে আপনি কমপক্ষে হাজার দুয়েক তারা প্রতি রাতে দেখে থাকেন । আর শুধু তাই নয় আপনার চোখে প্লানেট গ্রহ এবং ধুমকেতু পড়েছে তাই না । কিছু লোক রয়েছে যারা ঘন্টা ঘন্টা আকাশের দিকে চেয়ে থাকে অর্থাৎ নক্ষত্রদের স্টাডি করে শুধু তাই নয় তারা প্লানেটস গ্রহ এবং আকাশে দেখতে পাওয়া আরো অন্যান্য অবজেক্টকে স্টাডি করে । এই সমস্ত লোকদের বলা হয় অর্থাৎ জ্যোতির্বিজ্ঞানী শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ অর্থ এবং অ্যারেঞ্জমেন্ট অর্থব্যবস্থা থেকে অর্থাৎ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা ইউনিভার্সের বিভিন্ন অবজেক্টকে স্টাডি করে কিছুই অবজেক্টকে জামিন অর্থাৎ নিরীক্ষা করেন অর্থাৎ পরীক্ষাগারে চাঁদের মাটি মহাকাশে ধ্বংসাবশেষ প্রতিষ্ঠানগুলিকে নিয়ে পরীক্ষা করেন । 

আগে ডিসকভার করা অবজেক্টের নতুন সিদ্ধান্ত দ্বারা মডেল তৈরি করেন আপনি হয়তো মনে করবেন অর্থাৎ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা হয়তো তাদের এই কাজের জন্য টাকা পায় আসলে ঘটনাটা ঠিক এরকম নয় । বেশিরভাগ আমার এই কাজগুলোকে করে কারণ তাদের এটি হবে আর এই সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকে ছাড়াই এই কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকেন । তাদের বলা হয় এবার প্রশ্ন হল এরা কিভাবে ইউনিভার্সিটি স্টাডি করে যেগুলো মিলিয়নস কিলোমিটার দূরে অবস্থিত । এই সমস্ত জিনিস গুলি করার জন্য টেলিস্কোপ ব্যবহার করে থাকে তো আপনি চিনেন তাই না এমন আছে আপনার হাতের মুঠোয় যাবে । আর কিছু টেলিস্কোপে রয়েছে যেগুলো একটি বড় বিল্ডিং এর মত  আমি আপনাদের একটি টিপস দিব বলেছিলাম তাই না কথাটি হলো ঠিক এইরকম আমাদের পৃথিবী থেকে এতটাই দূরে অবস্থিত যদি আপনি পৃথিবী থেকে একটা উদ্দেশ্য করে জানান তাহলে সেই টরছলাইট লুকিয়ে পৌঁছাতে সময় লাগবে ৫ ঘন্টা । 

মহাকাশ ও জ্যোতির্বিজ্ঞান

আজকে আমার সম্পূর্ণ নতুন একটি চাকরি শুরু করেছে যার নাম জ্যোতির্বিজ্ঞান। অ্যাস্ট্রোনমি প্রথমে কিছু ইন্টারেস্টিং ফ্যাক্ট দিয়ে শুরু করি। ক্রিশ্চিয়ান ধর্ম বা খ্রিস্টান ধর্মের দুটি ভাগ রয়েছে একটি হচ্ছে প্রোটেস্ট্যান্ট আরেকটি হচ্ছে ক্যাথলিকদের কে বলা হয় একেবারে গোড়া ধর্মভীরু মানুষ। খ্রিস্টানদের অধিকাংশ মানুষের সাথে পরিচালিত অনুযায়ী এখনো বিশ্বাস করে পৃথিবী সৌরমণ্ডলের একেবারে কেন্দ্রে রয়েছে এবং বাকি যত অবজেক্ট জেলাতে ব্যবস্থা করছে। সবাই পৃথিবী কে কেন্দ্র করে একবিংশ শতাব্দীতে এসেও এত চিন্তা ভাবনা নিয়ে চলা মানুষের মতন দেশে অবস্থান করে। সেই জায়গাতেই অ্যাস্ট্রোনমি কিংবা জ্যোতির্বিজ্ঞান বিষয়ক পড়াশোনার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। প্রথমে একটু বলে না দরকার জিনিসটিকে এবং তার সাথে অ্যাস্ট্রোলজি এই ব্যাপারটি পার্থক্য কোন জায়গায়।

 পৃথিবীর পৃথিবীর বাইরে যে জিনিসগুলো পৃথিবীর বাইরে কি সৃষ্টি হচ্ছে মানুষের জীবনে যা কিছু ঘটনা ঘটবে এর সাথে সম্পর্ক রয়েছে। সেলেস্টিয়াল অবজেক্টের গতিপ্রকৃতি গ্রহ নক্ষত্রের অবস্থান কোন সময় কোথায় আছে তার ওপরে মানুষের জীবনের বিভিন্ন ঘটনা কোন সময় কি ঘটবে মানুষ সফল হবে কি ব্যর্থ হবে তার জন্মলগ্ন টি ভালো কি ভালো না বিয়ের লগ্ন কি ভালো কি ভালো না এই সবকিছু ডিপেন্ড করে astrologer's সাইন্টিফিক গবেষণা হচ্ছে। এক ধরনের বিশ্বাস যেখানে স্ত্রীর আসলেই আমাদের জীবনে কতটুকু প্রভাব তার কোন ব্যাখ্যাও তারা কখনো দিতে পারেননি কিন্তু প্রাচীনকাল থেকেই আলোচিত এবং এখনো অনেক মানুষ বিশ্বাস করে অবস্থান থেকে হচ্ছে তাদের বিশ্বাসের কেন্দ্রবিন্দু বলে আখ্যায়িত করতে এসেছিল। সেটার মানে হচ্ছে সম্পূর্ণরূপে একটা জিনিস আমরা এখন যেরকম জনপ্রিয় একটি সমস্যা দেখা দেয় কেন বলছিল সেই সময় মানুষ কারণ আমি যদি পৃথিবীর উপরে দ্বারাই আমার কিন্তু কখনই মনে হবে না যে পৃথিবী গোল না।

শুধু দেখবে একটা জায়গা থেকে উৎপত্তি হয়েছে একটা ঘটনা ঘটেছিল। এরকম মানুষ বিশ্বাস করে এটাকে বলা হচ্ছে এই ব্যাপারটা কিন্তু সম্পূর্ণভাবে ধর্ম থেকে উদ্ভূত ধর্মীয় বিশ্বাস থেকে উপকার এবং ধর্ম অনেকাংশেই দেখা যায়। কিন্তু নিয়ন্ত্রণ করছিল প্রাচীন সময় ধর্মকে ভিত্তি হিসেবে ধরে শব্দটির অর্থ হচ্ছে পৃথিবীর কেন্দ্রমন্ডলের শব্দের প্রতিশব্দ সূর্য গ্রহ নক্ষত্র ধারণা দিয়েছিলেন। তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন তিনি প্রথম দেখাতে সক্ষম হন মানুষকে বিশ্বাস করাতে সক্ষম হন। যে পৃথিবী হচ্ছে সৌরমণ্ডলের একেবারে কেন্দ্রে অবস্থিত পৃথিবীর প্রায় এক হাজার বছর মানুষের বিশ্বাসের ছিল যতদিন না পর্যন্ত তার পরবর্তী মডেলটা দেখ মডেলটা সূর্যকে কেন্দ্র করে সূর্যকে কেন্দ্র করে হচ্ছে তার করানো হয়। সৌরমণ্ডলের সমস্যাটা এই জায়গায় একটা জায়গায় স্পষ্ট ভাবে লেখা আছে।

 যে সূর্য পৃথিবী কে কেন্দ্র করে ঘুরছে আর সেই অবস্থায় রয়েছে কিন্তু এভাবে বিশ্বাস করে। আপনি যতই হচ্ছে যে আমরা জিজ্ঞেস করি এই জিনিসগুলো কিন্তু বাইবেলের বাইরে কখনো যাবেনা। ধর্মীয় গ্রন্থ কিন্তু যেগুলো যে সব কথাই আমি ধর্মীয় গ্রন্থের বাইরে যদি কোন কথা যায় তখন কি সেটা বিশ্বাস করানো অনেক বেশি এবং এই কারণে আমরা কোন দেশে দেখতে পারছেন। মানুষ বিশ্বাস করে পৃথিবী সৌরমণ্ডলের কেন্দ্র এবং পৃথিবী কে কেন্দ্র করে এবং তাদের বসতি স্থাপন করা শুরু করে দিয়েছে। আমরা কিছুদিন আগেও দেখেছি তাদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে জিনিসটা কি রকম একজন বিরুদ্ধে কথা বললেন সর্বপ্রথম আকাশের তারা পর্যবেক্ষণ করতেন। এবং সেখান থেকেই তিনি প্রথম বলেছিলেন পৃথিবী আসলে সৌরমণ্ডলের কেন্দ্রে অবস্থিত না কিন্তু ধর্মীয় বিশ্বাস থাকার পরেও তারা সাইন্টিফিক বেপারবা পর্যবেক্ষণটি রয়েছে। সেটিকে ধর্মীয় বিশ্বাসের উপরে প্রাধান্য দিয়েছেন এরা হচ্ছে সবাই হেলিওসেন্ত্রিক মডেলের প্রবক্তা এবং তারা হচ্ছে যে প্রথম আচার্য সামনেই ব্যাপারটি খুবই সাহসী এবং স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছেন। 

আহতদের সাইন্টিফিক ভাবে এই জিনিসটা এটা কোন ব্যাপার না। আমরা সাইনসিটি দেখাতে সক্ষম হয়েছে মানুষের মধ্যে একটা বিশ্বাস স্থাপন হয়েছিল কিন্তু কারণ রয়েছে তার অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে অ্যাপারেন্ট ডেইলিমোশন হয়েছিল। কিন্তু কারণ আছে তার অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে অ্যাপারেন্ট ডেইলিমোশন কখনো বলতে পারব না এবং ধর্মীয় বিশ্বাস করা সম্ভব না। সর্বপ্রথম এবং এর মধ্যে এক ধরনের প্লাটফর্ম থেকে সর্বপ্রথম আমরা দেখতে পাই কিংবা প্রধান চ্যালেঞ্জ উত্থাপন করা হয়েছে। আমরা দেখতে পাই যে সব সময় সব কিছুর কিংবা কথা বলতেন দেখা গেল যে উনি কিন্তু বিভিন্ন ধরনের গবেষণা রয়েছে। ইদানীং তিনি একজন ছেলেকে নিয়ে কাজ করতে দেখলাম এবং দেখা গেল যখন দুইটা উত্তল লেন্সকে পাশাপাশি রেখে দিলো। তখন অনেক দূরের বস্তু খুব কাছাকাছি একটা জায়গায় গঠন হতে দেখা গেল জিনিসগুলো কে দেখা যেত না একসময় মনে করা হতো কিন্তু প্রথমেই তিনি বলেন তার পরবর্তীতে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে খুব স্পেশাল একটা জিনিস।

 পৃথিবীর অবস্থান পৃথিবীর মধ্যে অবস্থান করা হচ্ছে এই ব্যাপারটি বিজ্ঞানীক ভাবে প্রমান করতে সক্ষম হচ্ছে। সৌরমন্ডলে বাধা দিয়েছিল যখন আমরা দেখলাম যে চলে গিয়েছে কিন্তু হাতকড়া পরানো হয়েছিল এই ধরনের একটা কথা বলার কারণে একজন মানুষ যে এতটা ধার্মিক হওয়া সত্বেও তিনি একটা কথা সবসময় সেটা কখনো সেটা এসে করল। তার মধ্যে বিশ্বাস করল যে হচ্ছে আমি আমার যে গবেষণা ধর্মের সাথে নাও যেতে পারে কিন্তু আমি যে গবেষণা করছি সাইন্টিফিক ভাবে সেটি হয়তো হতে পারে গ্যালিলিওকে হাতকড়া পরানো হল জেল থেকে বের হওয়ার পরেও গ্যালিলিও বলছেন আমি তবুও বলবো পৃথিবী সূর্যকে কেন্দ্র করে ঘুরছে।

Don't Miss
© all rights reserved
made with by templateszoo